আমার সাবেক দুই প্রেমিকার জন্মদিনই ৩ সেপ্টেম্বর। এটা নিয়ে মাঝেমধ্যে বেশ প্রশ্নের উত্তর দিতে হয় আমাকে। অনেকই জিজ্ঞেস করে, ভাই ব্যাপারটা জোস না? ভাই আপনার অবাক লাগেনা? মজা না খুব? ইত্যাদি ইত্যাদি…

… মজা পায় সবাই

প্রথম জন নিখোঁজ হবার পর সাতবছরের মত তার বার্থডে পালন করলাম। ছোট ছিলাম। ভরপুর আবেগ। কেক টেক কাটতাম। ভং ধরে বসে থাকতাম। বেশ উদাস ভাবসাব নিয়ে ঘুরতাম। এরপর কেমনে কেমনে জানি আরেকটা প্রেম হয়ে গেলো…

দ্বিতীয়জনেরও একই দিনে বার্থডে…

তো ১৪ সালে দ্বিতীয় জনের বার্থডে কেক কাটতে গিয়ে কি হলো; সে বললো, কেক কাটবে কিন্তু খাবেনা…

‘খাবা না ক্যান?’

“আপনি এই কেক আমার জন্য কিনেন নাই। এক্সের কথা ভেবে কিনসেন। শুধু নামটা লিখসেন আমার”

‘তাইলে কেক কাটার দরকার কি? ফেরত দিয়ে দেই’

“আগেরজনের জন্য কিনে জীবনেও ফেরত দিসেন? আমার জন্য কিনসেন বলেই ফেরত দেয়ার কথা বলতেসেন। যান আগেরজনের নাম লিখায় নিয়ে আসেন”

… কি মুসিবত

সাতবছর পর কেকের উপর লেখা বদলেছে। আবেগ বদলেছে, ভালো লাগা পাল্টেছে। কিন্তু অশান্তি কমে নাই। কেক কাটতে এসেও মুসিবতে পরলাম…

যাই হোক, শেষমেষ সেই কেক কাটা হয়েছিলো। কেকের উপর গোলাপ ফুলটা আমিই খেয়েছিলাম…

কোনো একটা কারণে এই সম্পর্কও টিকলোনা। অবশ্য না টেকার কারণও আছে। আমি একটু বেশিই স্বাধীনচেতা বা গা ছাড়া স্বভাবের মানুষ। খোঁজখবর নেয়া, ফোনে টাইম টু টাইম কথা বলা, আমাকে দিয়ে এসব হয়না…

ব্রেকাপের পর এক ছোটভাই বুদ্ধি দিলো – “নিপুভাই এই মন খারাপ করে থাকার ব্যাপারটা আপনার সাথে যায় না। আপনার তো ফ্যান ফলোয়ারের অভাব নাই। লিস্ট থেকে একটারে খুঁজে বের করেন। কাজ হয়ে যাবে।”

খুঁজে বের করলাম। কথা বলাও শুরু করলাম। ফাইনালি কিছু বলতে যাবো, তখনই তার ফেসবুক আইডি লক হয়ে গেলো। স্কাইপিতে ভোটার আইডি কার্ডের ছবি পাঠিয়ে বললো, আইডি ঠিক করে দিতে…

ভোটার আইডি কার্ডে তার বার্থডে দেয়া, ৩ সেপ্টেম্বর ১৯৯৩ !

… তৃতীয়বারের বেলায়ও এই ৩ সেপ্টেম্বর আমার পিছু ছাড়েনা। তাই আর কোনো রিলেশনেই গেলাম না। ভং ধরলাম, আজীবন সিঙ্গেল থাকবো। বিয়ের সময় হলে ভালো দেখে একটা মেয়ে খুঁজে বিয়ে করে ফেলবো।

বিয়ের জন্য রিসেন্টলি ভালো একটা মেয়ে পাওয়া গেছে। জন্মতারিখ ৬ সেপ্টেম্বর !

তিন তিনে ছয়। আবার তিন দুগুণেও ছয়…

এখানেও তিনের দ্বৈত ব্যবহার পাওয়া গেলো। পাটিগণিত বীজগণিতের কোনো সুত্রই আর দরকার নেই এই অংকের হিসাব নামানোর জন্য…

কি করবো? আল্লাহর নামে রাজি হয়ে যাবো? নাকি গৌতম বুদ্ধের ফলোয়ার বা সাবস্ক্রাইবার সেজে গুহায় ঢুকে ধ্যানে বসবো। কোনটা করলে ভালো হয়?

… দিনরাত এখন সেইটাই ভাবতেছি

Comments

comments